বিশাল বাজেটের কারনে বাণিজ্যিক সাফল্যের চাপে ‘দ্য ওয়ে অফ ওয়াটার’

দ্য ওয়ে অফ ওয়াটার

আগামী ১৬ই ডিসেম্বর মুক্তি পেতে যাচ্ছে চলতি বছরের সবচেয়ে প্রতীক্ষিত সিনেমা ‘অ্যাভাটারঃ দ্য ওয়ে অফ ওয়াটার’। প্রথম পর্বের ঐতিহাসিক সাফল্যের পর এই ফ্র্যাঞ্চাইজির দ্বিতীয় পর্ব নিয়ে দর্শকদের প্রত্যাশ আকাশচুম্বী। করোনা মহামারীর কারনে বেশ কয়েকবার স্থগিত ছিলো সিনেমাটির নির্মান কাজ। ভারী মাত্রার ভিএফএক্স এবং নির্মানে দীর্ঘ সময়ক্ষেপণের কারনে সিনেমাটির বাজেট দাঁড়িয়েছে আকাশচুম্বী। জানা গেছে বিশাল বাজেটের কারনে বাণিজ্যিক সাফল্যের চাপে ‘দ্য ওয়ে অফ ওয়াটার’ সিনেমাটি।

হলিউডের প্রভাবশালী সংবাদ মাধ্যম ভেরাইটির প্রতিবেদন অনুযায়ী, বহুল প্রতীক্ষিত এই সিনেমাটি বিনিয়োগ তুলতে বক্স অফিসে নতুন রেকর্ড করতে হবে। উক্ত সংবাদ মাধ্যমের সাথে আলাপকালে এমনটাই সিনেমাটির নির্মাতা জেমস ক্যামেরন। প্রযোজকদের বিনিয়োগ ফেরত নিশ্চিত করতে সিনেমাটিকে ইতিহাসের তৃতীয় অথবা চতুর্থ সর্বোচ্চ আয়ের সিনেমা হিসেবে আবির্ভুত হতে হবে ‘অ্যাভাটারঃ দ্য ওয়ে অফ ওয়াটার’। নূন্যতম ২ বিলিয়ন মার্কিন ডলার আয় ছাড়া সিনেমাটি বক্স অফিসে ফ্লপ হিসেবে বিবেচিত হবে।

বিশ্বব্যাপী বক্স অফিসে ২ বিলিয়ন মার্কিন ডলার আয় নিশ্চিত করাটা এই সময়ে যেকোন সিনেমার জন্য কঠিন কাজ। তবে মহামারী পরবর্তি সময়ে মুক্তিপ্রাপ্ত মার্বেলের ‘স্পাইডার ম্যান – নো ওয়ে হোম’ সিনেমাটি নির্মাতাদের কিছুটা হলেও আশার আলো দেখাচ্ছে। সিনেমাটির পরিচালক জেমস ক্যামেরনের হিসেব অনুযায়ী, বিনিয়গ ফেরত নিশ্চিত করতে ‘অ্যাভাটারঃ দ্য ওয়ে অফ ওয়াটার’ সিনেমাটিকে এই নির্মাতার ‘টাইটানিক’ সিনেমার কাছাকাছি আয় করতে হবে। ‘টাইটানিক’ সিনেমার মোট বক্স অফিস আয়ের পরিমাণ ২.২ বিলিয়ন মার্কিন ডলার।

তবে নির্মাতাদের জন্য ভালো খবর হচ্ছে এই আয় মোটেও অসম্ভব নয়। এখন পর্যন্ত সিনেমাটির নিয়ে দর্শদকের উত্তেজনা বিবেচনায় সেটি খুবই সম্ভব একটি লক্ষ্য। এছাড়া এই ফ্র্যাঞ্চাইজির প্রথম সিনেমাটি এখন পর্যন্ত বিশ্বের সর্বোচ্চ আয়ের সিনেমা হিসেবে নিজের অবস্থান ধরে রেখেছে। বিশ্বব্যাপী বক্স অফিসে ‘অ্যাভাটার’ সিনেমাটির মোট আয়ের পরিমাণ ২.৯ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। প্রথম পর্বের জনপ্রিয়তার পাশাপাশি জেমস ক্যামেরনের নির্মাতা হিসেবে রেকর্ড সেরকমই ইঙ্গিত দিচ্ছে।

এদিকে বহুল প্রতীক্ষিত এই সিনেমার বক্স অফিসে উদ্বোধনী নিয়ে ইতিমধ্যে শুরু হয়েছে আলোচনা। এখন পর্যন্ত সিনেমাটির অগ্রিম টিকেট বিক্রি বিবেচনায় উত্তর আমেরিকার প্রেক্ষাগৃহ থেকে ১৫০ থেকে ১৭০ মিলিয়ন ডলারের উদ্বোধনী প্রত্যাশা করছেন ট্রেড বিশেষজ্ঞরা। আর ক্রিসমাসের ছুটি বিবেচনায় সিনেমাটির বক্স অফিস উদ্বোধনী ২০০ মিলিয়ন ডলার হতে পারে বলেও মনে করছেন অনেকে। এই ফ্র্যাঞ্চাইজির প্রথম সিনেমা বক্স অফিসে ৭৭ মিলিয়ন ডলারের উদ্বোধনী দিয়ে যাত্রা শুরু করেছিলো।

অন্যদিকে প্রথম পর্বের তুলনায় ‘অ্যাভাটারঃ দ্য ওয়ে অফ ওয়াটার’ সিনেমার একমাত্র দূর্বলতা হচ্ছে সিনেমাটি দৈর্ঘ। সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশিত খবরে জানা গেছে, ‘অ্যাভাটার’ সিনেমার তুলনায় ‘অ্যাভাটারঃ দ্য ওয়ে অফ ওয়াটার’ সিনেমার দৈর্ঘ ৩০ মিনিট বেশী। এই দৈর্ঘের কারনে নিঃসন্দেহে তুলনামুলকভাবে কম সংখ্যক প্রদর্শনী পেতে যাচ্ছে ‘অ্যাভাটারঃ দ্য ওয়ে অফ ওয়াটার’। তবে সিনেমাটির দৈর্ঘ বক্স অফিস উদ্বোধনীতে প্রভাব ফেললেও সিনেমাটির মোট আয়কে প্রভাবিত করবে না বলে মনে করছেন অনেকে।

সবকিছু ঠিক থাকলে বড় দৈর্ঘ নিয়ে ব্লকবাস্টার হওয়া সিনেমার তালিকায় নাম লিখাতে যাচ্ছে ‘অ্যাভাটারঃ দ্য ওয়ে অফ ওয়াটার’। বক্স অফিসে ইতিহাস সৃষ্টি করা তিন ঘণ্টার বেশী দৈর্ঘের সিনেমার তালিকায় রয়েছে ‘অ্যাভেঞ্জারস: এন্ডগেম’ (৩ ঘণ্টা ২ মিনিট) এবং ক্যামেরনের টাইটানিক (৩ ঘণ্টা ১৪ মিনিট)। সর্বোচ্চ আয়ের সিনেমার তালকায় এই দুই সিনেমার অবস্থান যথাক্রমে দ্বিতীয় এবং তৃতীয়। আর মুক্তি প্রতীক্ষিত ‘অ্যাভাটারঃ দ্য ওয়ে অফ ওয়াটার’ সিনেমাটির মোট দৈর্ঘ তিন ঘণ্টা দশ মিনিট।

উল্লেখ্য যে, পুরষ্কার জয়ী ‘অ্যাভাটার’ ফ্র্যাঞ্চাইজির প্রথম সিনেমাটি মুক্তি পেয়েছিলো ২০০৯ সালে। প্রথম পর্বের পর এই ফ্র্যাঞ্চাইজির দ্বিতীয় পর্বের জন্য দর্শকদের অপেক্ষা করতে হয়েছে ১৩ বছর। আর এই সময়ে সবকিছু বদলে গেছে ব্যাপকভাবে। যদিও আরো তিনটি সিক্যুয়েল জুড়ে বলার মতো একটি গল্প রয়েছে, যদি ফ্র্যাঞ্চাইজির নতুন সিনেমাটি দর্শকদের মাঝে আগ্রহের জন্ম না দেয় তবে সেখানে ছাঁটাই করা যেতে পারে। সে বিবেচনায় ‘অ্যাভাটার ৩’ হতে পারে ফ্র্যাঞ্চাইজির শেষ সিনেমা!

প্রসঙ্গত, পরিচালনার পাশাপাশি জোশ ফ্রিডম্যানের সাথে যৌথভাবে সিনেমাটির চিত্রনাট্য রচনা করেছেন জেমস ক্যামেরন। আর ‘অ্যাভাটারঃ দ্য ওয়ে অফ ওয়াটার’ সিনেমাটিতে অভিনয় করেছেন জো সালডানা, স্যাম ওয়ার্থিংটন, সিগর্নি ওয়েভার, স্টিফেন ল্যাং, ক্লিফ কার্টিস, জোয়েল ডেভিড মুর, সিসিএইচ পাউন্ডার, এডি ফ্যালকো, জেমাইন ক্লেমেন্ট এবং কেট উইন্সলেট। আগামী ১৬ই ডিসেম্বর বিশ্বব্যাপী মুক্তি পেতে যাচ্ছে সাম্প্রতিক সময়ের সবচেয়ে প্রতীক্ষিত এই সিনেমাটি।

আরো পড়ুনঃ
‘দ্য ওয়ে অফ ওয়াটার’ ব্যর্থ হলে ‘অ্যাভাটার ৩’ হতে পারে শেষ সিনেমা!
অন্য পৃথিবীর পানির গল্প নিয়ে আসছে জেমস ক্যামেরনের ‘অ্যাভাটার ২’
‘অ্যাভাটার ২’ ট্রেলার: প্যান্ডোরার মহাসাগরে মহাকাব্যিক যুদ্ধের এক ঝলক

By নিউজ ডেস্ক

এ সম্পর্কিত