প্রথম সপ্তাহান্তে বিশ্বব্যাপী প্রত্যাশার চেয়ে ভালো আয় করেছে ‘ওপেনহেইমার’

প্রথম সপ্তাহান্তে বিশ্বব্যাপী

ক্রিস্টোফার নোলান পরিচালিত ‘ওপেনহেইমার’ সিনেমাটি মুক্তি পেয়েছে গত ২১শে জুলাই। পারমাণবিক অস্ত্রের জনক হিসেবে জে. রবার্ট ওপেনহাইমারের দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ পরবর্তি সময়কে প্রাধান্য দিয়ে নির্মিত হয়েছে এই সিনেমা। ক্রিস্টোফার নোলান তার সহজাত গল্প বলার ধরন বজায় রেখেই নির্মান করেছেন জীবনী ভিত্তিক এই সিনেমাটি। স্বাভাবিক কারনে সিনেমাটি নিয়ে দর্শকদের আগ্রহ ছিলো আকাশচুম্বী। জানা গেছে মুক্তির প্রথম সপ্তাহান্তে বিশ্বব্যাপী বক্স অফিসে প্রত্যাশার চেয়ে ভালো আয় করেছে ‘ওপেনহেইমার’। অভ্যন্তরীণ বাজারের পাশাপাশি আন্তর্জাতিক বাজারেও ভালো উদ্বোধনী পেয়েছে সিনেমাটি।

প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হয়েছিল ‘ওপেনহেইমার’ প্রথম সপ্তাহান্তে বিশ্বব্যাপী ১০০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার আয় করতে সক্ষম হবে। এরমধ্যে অভ্যন্তরীণ বাজার থেকে ৫০ মিলিয়ন মার্কিন ডলারের প্রত্যাশা করেছিলেন সংশ্লিষ্টরা। তবে প্রিভিউ সহ প্রথম দিনেই সিনেমাটি অভ্যন্তরীণ বক্স অফিস থেকে আয় করেছিলো ৩৩ মিলিয়ন মার্কিন ডলার। সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশিত ‘ওপেনহেইমার’ বক্স অফিস প্রতিবেদন থেকে জানা গেছে প্রথম তিনদিনে অভ্যন্তরীণ বক্স অফিস থেকে সিনেমাটি আয় করেছে ৮০.৫ মিলিয়ন মার্কিন ডলার। আর আন্তর্জাতিক বাজার থেকে এসেছে আরো প্রায় ৯৪ মিলিয়ন মার্কিন ডলার।

অভ্যন্তরীণ বাজারে ৮০.৫ মিলিয়ন মার্কিন ডলার আয়ের মাধ্যমে ক্রিস্টোফার নোলানের তৃতীয় সর্বোচ্চ উদ্বোধনী পাওয়া সিনেমা হিসেবে আবির্ভুত হয়েছে ‘ওপেনহেইমার’। প্রথম সপ্তাহান্তে এই নির্মাতার সর্বোচ্চ উদ্বোধনী পাওয়া অন্য দুটি সিনেমা হচ্ছে যথাক্রমে ‘দ্য ডার্ক নাইট রাইজেস’ (১৬০.৯ মিলিয়ন মার্কিন ডলার) এবং ‘দ্য ডার্ক নাইট’ (১৫৮.৪ মিলিয়ন মার্কিন ডলার)। এছাড়া সিনেমাটি অভ্যন্তরীণ বাজারে প্রথম সপ্তাহান্তের আয়ে পিছনে ফেলেছে সাম্প্রতিক সময়ের আলোচিত কয়েকটি সিনেমাকে। এর মধ্যে রয়েছে ‘দ্য ফ্ল্যাশ’, ‘ইটার্নাল’ এবং ‘ইন্ডিয়ানা জোন্স অ্যান্ড দ্য ডায়াল অফ ডেসটিনি’।

এছাড়া উত্তর আমেরিকার বক্স অফিসে সর্বোচ্চ উদ্বোধনী পাওয়া জীবনী ভিত্তিক সিনেমার মধ্যে তৃতীয় অবস্থান নিশ্চিত করেছে ক্রিস্টোফার নোলানের ‘ওপেনহেইমার’। জীবনী ভিত্তিক সিনেমা হিসেবে উত্তর আমেরিকায় সর্বোচ্চ উদ্বোধনী পাওয়া অন্য দুটি সিনেমা হচ্ছে ‘আমেরিকান স্নাইপার’ (৮৯.৩ মিলিয়ন মার্কিন ডলার) এবং ‘দ্য প্যাশন অফ দ্য ক্রাইস্ট’ (৮৩.৮ মিলিয়ন মার্কিন ডলার)। অন্যদিকে আন্তর্জাতিক বাজারে প্রথম সপ্তাহান্তে সিনেমাটি আয় করেছে ৯৩.৭ মিলিয়ন মার্কিন ডলার। সব মিলিয়ে ১৭৪.২ মিলিয়ন মার্কিন ডলার আয়ের মাধ্যমে প্রথম সপ্তাহান্তে বিশ্বব্যাপী প্রত্যাশার চেয়ে ভালো শুরু করেছে ‘ওপেনহেইমার’ সিনেমাটি।

উল্লেখ্য যে, বিশ্বব্যাপী বক্স অফিসে ‘ওপেনহেইমার’কে মুখোমুখি হতে হয়েছে আলোচিত ‘বার্বি’ সিনেমাটির। স্বাভাবিক ভাবেই ‘ওপেনহেইমা-এর তুলনায় বিশ্বব্যাপী ভালো উদ্বোধনী পেয়েছে ‘বার্বি’। এই সিনেমার দর্শকও আলদা বলে জানা গেছে। সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদন অনুসারে, ‘বার্বি’ সিনেমার দর্শকদের ৬৮% হচ্ছেন নারী দর্শক। আর ‘ওপেনহেইমার’ সিনেমার মোট দর্শকের ৬৪% হচ্ছেন পুরুষ দর্শক। তবে সিনেমার স্থায়িত্ব এবং বিষয়বস্তু বিবেচনায় ‘বার্বি’-এর তুলনায় ‘ওপেনহেইমার’ বক্স অফিসে ভালো করছে বলে মনে করছেন অনেকে।

প্রসঙ্গত, বক্স অফিসে দারুণ শুরু পাশাপাশি সমালোচকদের কাছেও ব্যাপকভাবে প্রশংসিত হয়েছে ‘বার্বি’ এবং ‘ওপেনহাইমার’। মুক্তির পর সিনেমাগুলো প্রাথমিক প্রতিক্রিয়ায় প্রশংসায় ভাসিয়েছেন দর্শক এবং সমালোচকরা। দর্শকদের রেটিং নিয়ে পৃথিবীর অন্যতম নির্ভরযোগ্য ওয়েবসাইটে এমনটাই দেখা গেছে। যুক্তরাষ্ট্রের দর্শকদের ক্রিটিক রেটিং-ও ছিলো চোখে পরার মত। সিনেমা রেটিং বিষয়ক ওয়েবসাইট রোটেন টোম্যাটোতে ‘বার্বি’ এবং ‘ওপেনহাইমার’ সিনেমাগুলোর রেটিং হচ্ছে যথাক্রমে ৯০% এবং ৯৩%, যা সাম্প্রতিক সময়ে মুক্তিপ্রাপ্ত যেকোন সিনেমার চেয়ে অনেক বেশী।

আরো পড়ুনঃ
প্রথম সপ্তাহান্তে নতুন রেকর্ড দিয়ে বক্স অফিস যাত্রা শুরু করলো ‘বার্বি’
প্রথম সপ্তাহান্তে বক্স অফিসে ভালো অবস্থানে ‘মিশন ইম্পসিবলঃ ডেড রেকনিং’
‘ফাস্ট টেন’ বক্স অফিস: প্রথম সপ্তাহান্তে বিশ্বব্যাপী আয় ৩০০ মিলিয়ন

By নিউজ ডেস্ক

এ সম্পর্কিত

%d