শুধু সাফল্য নয় বক্স অফিস ডিজেস্টারের তালিকায়ও শীর্ষে তেলুগু সিনেমা

বক্স অফিস ডিজেস্টারের

চলতি বছরের মুক্তিপ্রাপ্ত এসএস রাজামৌলী পরিচালিত ‘আরআরআর’ এবং প্রশান্ত নীল পরিচালিত ‘কেজিএফ চ্যাপ্টার ২’ সিনেমাগুলো বিশ্বব্যাপী বক্স অফিসে ১০০০ কোটি রুপির বেশী আয় করতে সক্ষম হয়েছে। তেলুগু ইন্ডাস্ট্রির এই প্যান ইন্ডিয়া সিনেমাগুলো বক্স অফিসে আলোড়ন তুলে নতুন রেকর্ড গড়েছে। সাম্প্রতিক সময়ে ভারতের সবচেয়ে বেশী আয়ের সিনেমার তালিকায় রাজত্ব করছে তেলুগু সিনেমা। তবে তার উল্টো চিত্রও আছে। শুধু সাফল্য নয় বক্স অফিস ডিজেস্টারের তালিকায়ও শীর্ষে তেলুগু সিনেমা।

- Advertisement -

বিশ্বব্যাপী বক্স অফিসে সর্বাধীক আয়ের হিসেব করলে প্রথম স্থানে রয়েছে আমির খান অভিনীত ‘দঙ্গল’ সিনেমাটি। এরপর আছে এস এস রাজামৌলী পরিচালিত ‘বাহুবলীঃ দ্য কনক্লুশন’ এবং ‘আরআরআর’ সিনেমাগুলো। এই তালিকায় সর্বশেষ যুক্ত হয়েছে ‘কেজিএফ চ্যাপ্টার ২’। তবে বক্স অফিসে শুধু সাফল্য নয় নির্মাতাদের জন্য বড় ধরণের ক্ষতির মুখে ঠেলে দেয়ার ক্ষেত্রেও শীর্ষস্থানে রয়েছে তেলুগু ইন্ডাস্ট্রির দুটি সিনেমা। আর সেই দুইটি সিনেমাও আবার চলতি বছরে মুক্তি পেয়েছিলো।

চলতি বছরের মার্চ মাসের আগে পর্যন্ত ভারতের সবচেয়ে বড় বক্স অফিস ডিজেস্টার ছিলো রনভির সিং অভিনীত ‘৮৩’ সিনেমাটি। জানা গেছে এই সিনেমাটির কারনে নির্মাতারা প্রায় ৮০ কোটি রুপি ক্ষতির সম্মুখীন হয়েছিলেন। তবে ১৩ই মার্চ প্যান ইন্ডিয়া সিনেমা ‘রাধে শ্যাম’ মুক্তি পাওয়ার পর এই তালিকার শীর্ষস্থানতি দখল করে নেয় প্রভাসের এই সিনেমাটি। বিগ বাজেটে নির্মিত সিনেমাটি বক্স অফিসে মুখ থুবড়ে পরে। এই সিনেমায় নির্মাতাদের মোট ক্ষতির পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ১০০ কোটির বেশী।

- Advertisement -

‘রাধে শ্যাম’ মুক্তির এক মাসের মাথায় আরো একটি তেলুগু সিনেমা বক্স অফিসে মুখ থুবড়ে পরতে দেখা গেছে। কোরাটোলা সিবা পরিচালিত এই সিনেমাটির নাম ‘আচার্য’। তেলুগু সিনেমার মেগাস্টার চিরঞ্জীবী এবং পাওয়ার স্টার রাম চরন অভিনীত এই সিনেমাটি চলতি বছরের প্রতীক্ষিত সিনেমাগুলোর মধ্যে অন্যতম ছিলো। সময়ের বড় দুই তারকার এই সিনেমাটি মুক্তির পর দর্শকদের প্রত্যাশা পূরণে পুরোপুরি ব্যর্থ হয়েছে। তেলুগু ভিত্তিক একটি সংবাদ মাধ্যমের খবর অনুযায়ী সিনেমাটির জন্য নির্মাতাদের ক্ষতির পরিমাণ ৮০ কোটি রুপি।

এদিকে এই তালিকায় নতুন করে যুক্ত হয়েছে গত সপ্তাহে মুক্তি প্রাপ্ত কঙ্গনা রানাউত অভিনীত ‘ধাকড়’ সিনেমাটি। এর মাধ্যমে বলিউডের স্বঘোষিত লেডি সুপারস্টার কঙ্গনা রানাউত টানা ৯টি ফ্লপ সিনেমা উপহার দিলেন। ১০০ কোটি রুপি বাজেটে নির্মিত ‘ধাকড়’ সিনেমাটি মুক্তির প্রথম দিনেই বক্স অফিসে মুখ থুবড়ে পরে। তৃতীয় দিনে ভারতের প্রেক্ষাগৃহগুলোতে সিনেমাটির প্রদর্শনী বাতিল হতে দেখা গেছে। সংবাদ মাধ্যমে খবর অনুযায়ী সিনেমাটির মোট লসের পরিমাণ ৭০ কোটি রুপি।

- Advertisement -

তবে কঙ্গনা রানাউত অভিনীত ‘ধাকড়’ সিনেমাটির সাথে অন্যান্য সিনেমাগুলোর একটি জায়গায় পার্থক্য রয়েছে। ২৫০ কোটি রুপিতে নির্মিত ‘আচার্য্য’, ‘রাধে শ্যাম’ এবং ‘৮৩’ সিনেমাগুলো বক্স অফিসে ভালো শুরু করেছিলো এবং মুক্তি কিছুদিন বক্স অফিসেও আয় করেছিলো। কিন্তু বাজেট বেশী হওয়ার কারনে ক্ষতির পরিমাণও বেশী। অন্যদিকে কঙ্গনা রানাউত অভিনীত ‘ধাকড়’ সিনেমাটি প্রথম প্রদর্শনী থেকেই দর্শকশূন্যতায় ভুগতে দেখা গেছে। সর্বশেষ খবর অনুযায়ী বক্স অফিসে ব্যর্থতার কারনে সিনেমাটি স্যাটেলাইট এবং ওটিটি’তে বিক্রি হচ্ছে না।

ভারতীয় সিনেমার ইতিহাসে এখন পর্যন্ত সবচেয়ে বড় বক্স অফিস ডিজেস্টারের তালিকায় শীর্ষ পাঁচটি সিনেমার মধ্যে তিনটি সিনেমা বলিউডের। তবে শীর্ষ দুই সিনেমা হচ্ছে তেলুগু। বক্স অফিসে ব্লকবাস্টারের পাশাপাশি ব্যর্থতার দিকেও শীর্ষে অবস্থান করছে তেলুগু সিনেমা –

ক্রম সিনেমার নাম ক্ষতির পরিমাণ (কোটি রুপি) ইন্ডাস্ট্রি
০১ রাধে শ্যাম ১১০ তেলুগু
০২ আচার্য ৮০ তেলুগু
০৩ ৮৩ ৮০ বলিউড
০৪ ধাকড় ৭০ বলিউড
০৫ বোম্বে ভেলভেট ৭০ বলিউড

সাম্প্রতিক সময়ে তেলুগু সিনেমাগুলো আঞ্চলিকতার সীমা পেরিয়ে ভারতজুড়ে বক্স অফিসে ঝড় তুলছে। ইতিমধ্যে মুক্তিপ্রাপ্ত সিনেমাগুলো ছাড়াও বর্তমানে বেশ কয়েকটি বিগ বাজেটের তেলুগু সিনেমা প্যান ইন্ডিয়া মুক্তির অপেক্ষায় রয়েছে। সিনেমাগুলো নিয়ে দর্শকদের আগ্রহ এবং প্রত্যাশা আকাশচুম্বী। বড় বাজেটে নির্মিত হওয়ার কারনে সিনেমাগুলোর বক্স অফিসে ক্ষতির পরিমাণটাও বেশী হবে। নির্মানাধীন এই সিনেমাগুলো সফল না ব্যর্থ – কোন তালিকায় অবস্থান নেয় সেটা সময়ই বলে দিবে।

আরো পড়ুনঃ
তারকাদের অতিরিক্ত পারিশ্রমিকই তামিল সিনেমার খারাপ অবস্থা মূল কারন!
‘আরআরআর’কে পিছনে ফেলে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ আয়ের সিনেমা ‘কেজিএফ ২’
‘আচার্য’ ব্যর্থতা কাটিয়ে নতুন সিনেমার কাজে ফিরলেন মেগাস্টার চিরঞ্জীবী

এ সম্পর্কিত

আরো পড়ুন

- Advertisement -
- Advertisement -

সর্বশেষ

মুক্তি প্রতীক্ষিত

  • লিডার আমিই বাংলাদেশ
    লিডার আমিই বাংলাদেশ