বিক্রমাদিত্য মোটওয়ানের ‘উড়ান’: যুগান্তকারী যে সিনেমার গল্প আজও প্রাসঙ্গিক

বিক্রমাদিত্য মোটওয়ানের ‘উড়ান’

২০১০ সালটা বলিউডের জন্য খুবই আকর্ষনীয় একটি বছর ছিলো। বাণিজ্যিক গল্পের ব্যবসা সফল সিনেমা ‘দাবাং’, ‘মাই নেম ইজ খান’, ব্যান্ড বাজা বারাত’, ‘রাজনীতি’র মত সিনেমার পাশাপাশি মুক্তি পেয়েছিলো ‘পিপলি লাইভ’, ব্রেক কে বাদ’ এবং ‘পান সিং তোমার’ এর মত প্রশংসিত সিনেমা। তবে এই বছরে মুক্তি প্রাপ্ত বিক্রমাদিত্য মোটওয়ানের ‘উড়ান’ সিনেমাটি ছিলো সবকিছু থেকে আলাদা। শুধু ২০১০ সালে না, বলিউডের মুক্তিপ্রাপ্ত পারিবারিক সেন্টিমেন্টের যেকোন সিনেমার থেকে আলাদা ছিলো ‘উড়ান’। আজ মুক্তির ১২ বছর পরও যুগান্তকারী এই সিনেমার গল্প আজও প্রাসঙ্গিক। গল্পের এবং সময়ের প্রাসঙ্গিকতায় আজকে কথা বলবো ‘উড়ান’ সিনেমা নিয়ে।

- Advertisement -

আমাদের সমাজ ব্যবস্থায় একজন সন্তানের ভবিষ্যতের ব্যাপারে তার বাবা-মা সিদ্ধান্ত নিয়ে থাকেন। সাধারণত দেখা যায় নিজেদের অপূর্ন স্বপ্ন এবং ইচ্ছা চাপিয়ে দেন তার সন্তানের উপর। কিন্তু বেশীরভাগ ক্ষেত্রে এটা বিবেচনা করা হয়না যে, তার নিজস্ব কিছু চিন্তা থাকতে পারে। থাকতে পারে বিশেষ কোন গুন, যেটা তাকে অন্যদের থেকে আলাদা করে। ‘উড়ান’ সিনেমার প্রধান চরিত্র রোহান এরকম একটি পরিবেশের মধ্যে লড়াই করে টিকে থাকার যুদ্ধে লিপ্ত। অন্য দশজনের মত তার ছকে বাধা জীবন পছন্দ নয়। তার উদাসীনতার কারনে তাকে বোডিং স্কুল থেকে বিরাতির করা হলে সে তার বাবার সাথে থাকা শুরু করে। সে শান্ত থাকতে এবং নিজের মত করে কবিতা নিয়ে থাকতে পছন্দ করে।

সিনেমাটির বেশ কিছু সূক্ষ্মতা ‘উরান’কে এক যুগ পরেও এতটা আইকনিক করে তোলে। ‘উড়ান’ সিনেমায় এমন কিছু আছে যা আমাদের প্রত্যেকের সাথে সম্পর্কিত হতে পারে, এমনকি আমরা সেই নির্দিষ্ট পরিস্থিতিতে না থাকলেও। বিক্রমাদিত্য মোটওয়ানের ‘উড়ান’ সিনেমার অন্যতম প্রধান প্রেক্ষাপট হল কর্তৃত্বের প্রতি দাঁড়ানো। বোর্ডিং স্কুল থেকে সিনেমা দেখার মতো বেপরোয়া উপায়ে হোক বা আপনার ছোট ভাইকে একটি অপ্রীতিকর এবং অপমানজনক বাড়ি থেকে পালাতে সাহায্য করার জন্য ফিরে আসার মতো আরও পরিণত ঘটনা সিনেমাটিকে উপভোগ্য করে তোলে।

- Advertisement -

রোহান যখন ছোট বাড়িতে এবং জামশেদপুরে তার ইঞ্জিনিয়ারিং কোর্সে খাঁচায় বন্দী বোধ করে, তখন ছোট ছোট ঘটনার মাধ্যমে ভিতরের বিদ্রোহকে প্রকাশ্যে নিয়ে আসে। ছোট ছোট উপায়ে, যেমন বৃষ্টিতে গাড়ি চালানো, হাসপাতালে রোগীদের গল্প বলা এবং পরিবারের গাড়িতে আঘাত করা। এমনকি একটি বিশেষ সংঘর্ষের পরে সে তার বাবা ভৈরব সিংকেও ঘুষি মারে। রোহান নিখুঁত নয় এবং তার বিদ্রোহ ভদ্র বা নৈতিক নয়। সে যেভাবে জানে সেভাবেই সে শুধু মারধর করছে।

সিনেমাটির চিত্রনাট্যে দুর্দান্ত একটি অভিনবত্ব রয়েছে। ‘উড়ান’ সিনেমায় রোহান কোন নিখুঁত চরিত্র নয়, আবার তার বাবা, ভৈরব সিং গল্পের ভিলেনও নয়। মাসান্দের সাথে এই সাক্ষাত্কারে চরিত্রটি সম্পর্কে রায় বলেছেন, ‘আমি তাকে কখনও ভিলেন হিসাবে দেখিনি, আমি তাকে বাবা হিসাবে দেখেছি। ভৈরব স্পষ্টতই অপ্রীতিকর, তিনি অপমানজনক, তার এবং তার ছেলেদের মধ্যে কোন উষ্ণতা নেই, এমনকি তিনি দাবি করেন যে তারা তাকে স্যার বলে ডাকে, বাবা নয়।‘ এমন একজন বাবা যার মধ্যে তার সন্তানদের জন্য কোন মমত্ববোধ নেই। তিনি শুধু যে রোহানকে কবি হওয়ার বদলে না একজন ইঞ্জিনিয়ার হতে বাধ্য করার চেষ্টা করেন তানা, তিনি অর্জুনকে (ছোট ছেলে) এতটাই খারাপভাবে আঘাত করেন যে তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। তবে এখানে কিছু সংলাপ এবং অভিব্যক্তির মাধ্যমে আখ্যানটি স্পষ্ট করে দেয় যে ভৈরব সিংও সম্পূর্ণ ভিলেন নন। তার শৈশব এবং তার বাবার সাথে তার সম্পর্কের কথাও উঠে এসেছে সিনেমার গল্পে।

- Advertisement -

সিনেমাটির মাধ্যমে বিক্রমাদিত্য মোটওয়ানে এমন একটি ভাবপ্রবণতায় আঘাত করেছেন, বেশিরভাগ বাচ্চা যে রকম অভিজ্ঞতার মধ্য দিয়ে যায়। বাড়িতে অপব্যবহারের বেশিরভাগ ঘটনাই রিপোর্ট করা হয় না, এবং আমরা হয়তো কখনই জানি না যে বাচ্চাদের সাথে তাদের নিজের বাড়িতে কতটা খারাপ আচরণ করা হয়। উপমহাদেশের বাবা-মায়েরা তাদের সন্তানদের জীবনের পরিকল্পনা করতে এবং তাদের সন্তানদের গলায় তাদের স্বপ্নকে জোর করে সাজাতে পছন্দ করেন। রোহন যখন বলে যে সে আর্টস পড়তে চায়, ভৈরব সিং এর প্রতিক্রিয়া হল ‘তোমার কাছে কেউ জানতে চাইছে?’ বেশিরভাগ শিশু তাদের সারা জীবন এই বিবৃতিটির ভিন্নতা শুনেছে।

সিনেমাটির শেষ বিদ্রোহ তাই সন্তোষজনক। হ্যাঁ, বাড়ি থেকে অজানা যাত্রা সম্ভবত সমস্ত রংধনু এবং প্রজাপতির হবে না, তবে এমনকি সেই সংগ্রামটি তারা যা রেখে যাচ্ছে তার চেয়েও ভাল। সিনেমাটি পিতামাতা এবং সন্তানের মধ্যে কোনো ধরনের সমঝোতায় পৌঁছায় না, এটি আপনার পিতামাতার প্রতি আনুগত্য এবং অন্ধ ভক্তি প্রচার করে না, এটি পিতামাতার হৃদয়ের ব্যাপক পরিবর্তন দেখতে পায় না এবং তারা সুখী হয় না পরিবার। এই সবই ‘উড়ান’ সিনেমাটিকে বেশির ভাগ সিনেমার থেকে চেয়ে বাস্তব, আরও বিশ্বাসযোগ্য করে তোলে।

অবশেষে, বিক্রমাদিত্য মোটওয়ানের ‘উড়ান’ সিনেমাটির গানের কথা বলে এই লেখাটি শেষ করতে চাই।  অমিত ত্রিবেদী সেরা এবং জনপ্রিয় অ্যালবামগুলির মধ্যে একটি ‘উড়ান’, যা ১২ বছর পর এখনও হৃদয়কে নাড়া দিতে সক্ষম। সঙ্গীতের পাশাপাশি গানের কথা প্রশান্তিদায়ক। ‘কাহানি’, ‘গীত মে ধলতে লফজন মে’ এবং আমার ব্যক্তিগত প্রিয় ‘আজাদিয়ান’ নিঃসন্দেহে, ত্রিবেদীর সুর করা কিছু সেরা গান। গানে ছেলেসুলভ উচ্ছ্বাস আছে কিন্তু কিছু একটা মুক্ত হওয়ার অনুভূতিও আছে।

আরো পড়ুনঃ
রাম গোপাল ভার্মার ‘সত্যা’: বলিউডে গ্যাংস্টার সিনেমার ধারা বদলের উপ্যাখ্যান
সত্যম শিবম সুন্দরম: কালের প্রবাহে যৌনতা থেকে শৈল্পিক সিনেমার উদাহরণ

হোসেন মৌলুদ তেজো
হোসেন মৌলুদ তেজোhttps://iammoulude.com/
হোসেন মৌলুদ তেজো একজন নিয়মিত ব্লগার যিনি সিনেমা নিয়ে লিখতে ভালোবাসেন। সিনেমার পাশাপাশি কবিতা, ছোট গল্প, সমসাময়িক এবং ব্যবসা সম্পর্কিত বিষয়েও লিখে থাকেন। প্রফেশনালী একটি বেসকারী আর্থিক প্রতিষ্ঠানে কর্মরত আছেন। ব্যক্তি জীবনে তিনি বই পড়ে, সিনেমা দেখে এবং তার একমাত্র ছেলের সাথে সময় কাটাতে পছন্দ করেন।

এ সম্পর্কিত

আরো পড়ুন

- Advertisement -
- Advertisement -

সর্বশেষ

মুক্তি প্রতীক্ষিত

  • লিডার আমিই বাংলাদেশ
    লিডার আমিই বাংলাদেশ