Resident Evil সিরিজ: Red Queen, Zombie, Alice এবং টিকে থাকার লড়াই

Resident Evil সিরিজ

Resident Evil সিরিজ এবং এর সিনেমাগুলো নিয়ে রিভিউ লেখার দারুন ইচ্ছে ছিলো কিন্তু কিভাবে লিখবো বুঝতেছিলাম না। এই সিরিজের সবগুলা মুভিই আমার দারুন পছন্দের তাই রিভিউ লোখার ইচ্ছেটা মাথানাড়া দিয়ে উঠছিলো বারবার। মূলত Resident Evil হচ্ছে বিজ্ঞান কল্পকাহিনী ভিত্তিক মুভি এবং এটি নির্মিত হয় জাপানি ভিডিও গেইম Resident Evil এর উপর ভিত্তি করে। জার্মান স্টুডিওতে কনস্ট্যান্টিন ফিল্ম সম্ভাব্য লেখক হিসেবে অ্যালান বি ম্যাকএলরয় ও জর্জ এ রোমেরো সঙ্গে মিলে জানুয়ারী ১৯৯৭ সালে প্রথম চলচ্চিত্র নির্মানের লক্ষে চুক্তিবদ্ধ হয়।

২০০১ সালে Sony Entertainment এর অধীনে একের পর এক Resident Evil সিরিজ এর সিনেমা বের হতে থাকে। Paul W. S. Anderson পরিচালক হিসেবে ছিলেন। এই ফিল্মের সিরিজগুলো হচ্ছে –

  1. Resident Evil (2002),
  2. Resident Evil: Apocalypse (2004),
  3. Resident Evil: Extinction (2007),
  4. Resident Evil: Afterlife (2010),
  5. Resident Evil: Retribution (2012) and
  6. Resident Evil: The Final Chapter (2016)

Resident Evil সিরিজ এর গল্পের মূল বিষয়টা এমন হচ্ছে, বায়োইঞ্জিনিয়ারিং ফার্মাসিউটিকাল কোম্পানি bioweapons নামের এক অদ্ভূদ প্রকরন সৃষ্টি করে এবং তাদের এই পরীক্ষা সফল করার লক্ষে অগনিত মানুষদের গিনিপিগ হিসেবে প্রনিয়ত ব্যাবহার করা হয় আর এই প্রজেক্টের নাম রাখা হয় Umbrella Corporation. তাদের এইসব পরীক্ষামূলক কাজের জন্যে T-virus নামক এক ভাইরাস দ্বারা অসংখ্য zombie apocalypse এর সৃষ্টি হয় আর এইসব বিকৃত মস্তিষ্কের মুনষগুলো সব দানবে পরিনত হয় । এটি ছিলো এক মরনঘাতি এক্সপেরিমেন্ট কিন্তু এইসকল বিজ্ঞানীদের লক্ষ্য যেনো অন্য কিছুই ছিলো।

এখন এই সিনেমার প্রধান চরিত্রের নাম হচ্ছে Alice, কিন্তু Alice এর ভূমিকা কি ছিলো আসলে? আসলে এতসব পরীক্ষা-নিরিক্ষার সফল উদাহারন ছিলো এই মেয়ে Alice কিন্তু তাকে বারবার নানানভাবে ব্যাবহারের চেষ্টা চালানো হয়। কিন্তু এই মেয়েটির মাঝে বিশেষ কিছু বৈশিষ্ট্য ছিলো যার কারনে এইসকল কু-চক্রি বিজ্ঞানীদের কাজের মাঝে বাধা হয়ে বারবার সামনে আসছিলো।

Resident Evil (2002)
ভূ-গর্ভস্থ একটা শহর যেখানে জেনেটিক নিয়ে রিসার্চ এর কাজ চালাচ্ছিলো Umbrella Corporation, Hive নামে ডাকা হচ্ছিলো কিন্তু কেউ একজন সেই Hive থেকে T-virus টি চুরি করে নেয় এবং সে T-virus নামক সেই ভাইরাস সর্বত্র ছড়িয়ে দেয় যার কারনে মানুষ সব ইনফেক্টেড হচ্ছিলো এবং এই virus মানব দেহের প্রয়োজনীয় সব কোষগুলোকে মেরে তাদেরকে zombie তে পরিনত করছিলো। যার কারনে Red Queen ভেতরের সবাইকে বন্দি বানিয়ে মেরে ফেললো ।এখন প্রশ্ন আসে এই Red Queen কে?

এই ফিল্মের অংশে Alice এর অংশ শুরু হয় যে কিনা সম্পূর্ণ নগ্ন অবস্থায় নিদ্রা হতে জেগে উঠে এবং নির্জন একটি অট্টালিকায় কিছু টুকরো স্মৃতি নিয়ে নিজেকে আবিষ্কার করে। সে পুরো বাসাতে খুজতে থাকে এবং এক অপরিচিত লোকের দেখা পায় কিন্তু সে তখনো বুঝতে পারে না এই লোকটি কে ছিলো। Sanitation নামের একটি দল যেটি কিনা James Shade এর নেতৃত্বে ছিলো তারা সেই অজ্ঞাত লোক যার নাম Matt Addison তাকে গ্রেফতার করে এবং Alice কে জানায় সে এবং তার এই সংগী মূলত Umbrella Corporation এর সিকউরিটি গার্ডস হিসেবে কাজ করতো।

এভাবেই মুভিটির প্রথম অংশ শুরু হয় এবং Alice এর কাছে সব তথ্যই নতুন মনে হচ্ছিলো। এখন Alice এর কাজ হচ্ছে সেই Hive এ যাওয়া এবং সেখানে গিয়ে খুজে বের করা আসলে সেখানে কি হয়েছিলো। কিন্তু Alice এর পূর্ব কোন স্মৃতিই মনে ছিলো না। এখন এই Hive একটি কম্পউটার পোগ্রাম দ্বারা পরিচালিত হচ্ছিল যার নাম ছিলো Red Queen. এরপর সবকিছুই বেশ জটিলভাবে এগুচ্ছিলো এবং Alice সামনে আসছিলো এক একটি নতুন সব ঘটনা আসলেই কি সে যা দেখছিলো সব সত্য ছিলো?

Resident Evil: Apocalypse (2004)
এই অংশে দেখা যায় যে ভাইরাস ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে পড়েছিলো। একদল মানুষ একটা নির্দিষ্ট শহরের মাঝে আটকা ছিলো এবং তারা zombie তে পরিনত হয় পুরো শহরাটাতে এক ভৌতিক পরিবেশের সৃষ্টি হয়। আবারো Alice নিদ্রা থেকে জেগে উঠেছিলো কিন্তু এবারে Alice কোমায় ছিলো। সে Umbrella Corporation এর সিকউরিটি অফিসার Jill এবং Peyton কে একটা দানবপাল দল থেকে উদ্ধার করে এবং তারা ডঃ Charles Ashford সাথে যোগাযোগ করে যে কিনা এইসব ব্যাপারে হয়তো কোন সহায়তা করতে পারে কিন্তু সে এবং তার মেয়ে Angela সহ সেই শহরে বন্দি অবস্থায় থাকে। এখন এই ডঃ Charles Ashford কে ছিলেন আর তার সাথে Umbrella Corporation এর কি সংযোগ ছিলো এবং ডঃ তার মেয়েকে বাাঁচানোর জন্যে Alice কে কেন অনুরোধ করেছিলো?

Resident Evil: Extinction (2007)
এই অংশে দেখা যায় যে পুরো পৃথিবী এই ভয়ানক T-virus দ্বারা আক্রান্ত হয়ে পড়ে এবং Umbrella Corporation আবিষ্কার করে যে Alice এর বেঁচে থাকার লড়াই যথেষ্ট উত্তেজনাকর ছিলো তার ক্ষমতা আরো ভালোভাবে পরীক্ষা করে দেখবার জন্যে Alice এর ক্লোনগুলোকে আরো বেশি উন্নত করে। হ্যাঁ Alice এর বহু সংখ্যক ক্লোনের দেখা পাওয়া যায় এবং আসল Alice কে ছিলো তা নিয়ে যথেষ্ট কনফিউশন একটা ব্যাপার সৃষ্টি হয়। Nevada নামক এক মরুভূমি এলাকায় সে এক বাহিনীর সাথে যোগদান করে। শুরু হয় নতুন লড়াই।

Resident Evil: Afterlife (2010)
মৃতের উপর দিয়ে হেটে যাওয়া Alice আবারে Umbrella’র হেডকোয়ার্টারে আসে এবং আক্রমন করে বসে যেটি কিনা Tokyo শহরে ছিলো। যাত্রাপথে সারভাইভারদের উদ্ধারের মাধ্যমে Alice তার পুরোন বন্ধুদের ফিরে পায় তবে Wesker, Alice কে serum দ্বারা ইনজেকশন দেয় যেটি কিনা Alice এর মাঝে থাকা বিশেষ ক্ষমতাগুলো নষ্ট করে সাধারন মানুষে পরিনত করে।

Resident Evil: Retribution (2012)
আবারো Alice জেগে উঠে । পৃথিবী ভয়াবহভাবে T-virus দ্বারা আক্রান্ত হয়ে আছে, মানুষগুলো মাংস খাওয়া এক zombies এ পরিনত হয়েছে এবং Alice হচ্ছে একমাত্র ভরসা। Alice, যে কিনা এখনো টিকে থাকবার লড়াইয়ে বেঁচে আছে Umbrell ‘র জটিল সব তথ্যের কথা, T-virus কে দমন করার জন্যে এন্টিডোজের কথা সব বেড়িয়ে আসে। এখানে Alice তার পুরোনো বন্ধুদের সহোযোগিতা লাভ করে এবং টিকে থাকবার লড়াইয়ে আরো একধাপ সামনের দিকে আগ বাড়ে।

Resident Evil: The Final Chapter (2016)
শেষ অধ্যায়, T-virus এর ভয়বহতার কারনে মানুষখোকো zombies, দানব, ভয়ানক প্রাণীর সৃষ্টি হয়। Alice যে কিনা Umbrella কর্পোরেশনের সাধারন কর্মী থেকে অসাধারন যোদ্ধায় পরিনত হয় তার আসল পরিচয় উঠে আসে সব গোপন তথ্য উন্মোচিত হয়। Umbrella Corporation এর দায়িত্বে ছিলো কারা? কে আসল মানুষ ছিলো? Alice এর আসল পরিচয় কি ছিলো সে কি সত্যই মানুষ ছিলো না কোন নতুন ক্লোন ছিলো সব কিছুর খোলাসা হয়। T-virus এর এন্টিডোজের সন্ধান পেতে সাহায্য করে Red Queen. Red Queen জানে Alice আসছে এবং তার উপরেই নির্ভর করে আছে গোটা মানব জাতি।

আরো পড়ুনঃ
মেরিলিন মনরো: হলিউডের সবচেয়ে বড় অসমাপ্ত অধ্যায়ের শুরু থেকে শেষ!
দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের ভয়াবহতা নিয়ে নির্মিত হলিউডের সেরা ৫টি সিনেমা
শুধু সিনেমার পর্দায় নয়, বাস্তবে অভিশপ্ত ছিলো যে ৫টি ভৌতিক সিনেমা!

এ সম্পর্কিত

আরো পড়ুন

- Advertisement -

সর্বশেষ

মুক্তি প্রতীক্ষিত

  • লিডার আমিই বাংলাদেশ
    লিডার আমিই বাংলাদেশ