যে পাঁচটি কারনে আপনার দেখা উচিৎ দীপনের ‘অপারেশন সুন্দরবন’

দীপনের ‘অপারেশন সুন্দরবন’

আগামী ২৩শে সেপ্টেম্বর মুক্তি পেতে যাচ্ছে ‘ঢাকা অ্যাটাক’ খ্যাত নির্মাতা দীপঙ্কর দীপনের ‘অপারেশন সুন্দরবন’ সিনেমাটি। র‍্যাব ওয়েলফেয়ার কো-অপারেটিভ সোসাইটি লিমিটেড প্র্রযোজিত এই সিনেমায় সুন্দরবনকে জলদস্যুমুক্ত করার জন্য র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‍্যাব) এর কার্যক্রম তুলে ধরা হয়েছে। দেশপ্রেম, রোমাঞ্চ, রহস্য, সাহস, দীর্ঘদিনের অপরাধের শেকড় উন্মোচন, অপরিসীম প্রতিকূল এবং রহস্যে ঘেরা বনভূমি সুন্দরবনের গল্প ক্যামেরা বন্দী করছেন এই নির্মাতা।

- Advertisement -

দেশীয় সিনেমা আলোচিত নির্মাতা দীপঙ্কর দীপন সূত্রে জানা গেছে পুরোপুরি বাণিজ্যিক ঘরানার’ সিনেমা হিসেবে নির্মিত হয়েছে ‘অপারেশন সুন্দরবন’। সিনেমাটি প্রসঙ্গে এই নির্মাতা বলেন, ‘সুন্দরবন দস্যু মুক্ত হবার গল্প নিয়ে নয়, অপারেশন সুন্দরবন তৈরি হয়েছে সুন্দরবন দস্যুমুক্ত হওয়াকে উদযাপন করতে। এটি কোনো ডকুমেন্টারি নয়, এটি সম্পূর্ণ বাণিজ্যিক সিনেমা; যেখান ড্রামা-সাসপেন্স- নারী পুরুষের সম্পর্ক প্রেম ভালবাসা সবকিছু আছে।‘ সিনেমাটিতে সুন্দরবনের র্যাবের দুঃসাহসিক অভিযান, জীববৈচিত্র্য, প্রেম-প্রকৃতির সবকিচুই উঠে আসবে বলে জানিয়েছেন এই নির্মাতা।

সিনেমাটি প্রসঙ্গে দীপংকর দীপন আরো বলেন, ‘এই ছবি দীর্ঘদিনের কষ্টের ফসল। এই কষ্ট শুধু আমি একা করিনি। র্যাবের বিভিন্ন অফিসার, সদস্য থেকে আমার সরকারী পরিচালকরা শিল্পী কলাকুশলী, রাইটার প্রত্যেকেই করেছে। সুন্দরবনে যে পরিস্থিতিতে গিয়ে কাজ করেছি সত্যিকারঅর্থে ভীষণ কঠিন।‘ সিনেমাটির মুক্তিকে সামনে রেখে চলুন দেখে নেয়া যাক এমন কিছু বিষয়, যার কারনে সিনেমাটি অবশ্যই আপনার প্রেক্ষগৃহে দেখা উচিৎ।

- Advertisement -

০১। ‘অপারেশন সুন্দরবন’ সিনেমার প্রেক্ষাপট
দীপনের ‘অপারেশন সুন্দরবন’ সিনেমাটি এমন প্রেক্ষাপটে নির্মিত হয়েছে যা দেশীয় সিনেমায় এর আগে দেখা যায়নি। সুন্দরবনকে জলদস্যুমুক্ত করার জন্য র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‍্যাব) এর কার্যক্রম নিয়ে নির্মিত হয়েছে এই সিনেমা। ‘ঢাকা অ্যাটাক’ সিনেমার পর বাণিজ্যিক সব উপাদান দিয়ে সাজানো হয়েছে এই সিনেমাটির গল্প এবং চিত্রনাট্য। জানা গেছে ‘অপারেশন সুন্দরবন’ সিনেমার দৃশ্যধারন শুরুর আগে এক বছরের অধিক সময় সুন্দরবনের বিভিন্ন অঞ্চল ঘুরে বেড়িয়েছেন পরিচালক দীপংকর দীপন ও তার টিম।

০২। ‘ঢাকা অ্যাটাক’ খ্যাত নির্মা দীপঙ্কর দীপনের সিনেমা
সাম্প্রতিক বছরে মুক্তিপ্রাপ্ত ঢালিউড সিনেমাগুলোর মধ্যে অন্যতম ‘ঢাকা অ্যাটাক’। ২০১৭ সালে ‘ঢাকা অ্যাটাক’ মুক্তির পর লম্বা সময় পর নিজের পরিচালিত দ্বিতীয় সিনেমার মাধ্যমে পরিচালক হিসেবে ফিরছেন দীপঙ্কর দীপন। ‘ঢাকা অ্যাটাক’ সিনেমাটিকে দেশীয় সিনেমার জন্য একটি মাইলফলক হিসেবে বিবেচনা করে থাকেন অনেকে। আলোচিত এই সিনেমাটির পর দীপনের নতুন সিনেমা অবশ্যই প্রত্যাশার দাবী রাখে। দীপনের কারনে নিঃসন্দেহে সিনেমাটি প্রতীক্ষিত সিনেমার তালিকায় চলে আসে খুব সহজে।

- Advertisement -

০৩। তারকাবহুল সিনেমা ‘অপারেশন সুন্দরবন’
ঢালিউডে তারকাবহুল সিনেমা নতুন কিছু নয়। দেশীয় সিনেমার সোনালি সময়ে দর্শকরা বড় তারকাদের নির্মিত তারকাবহুল সিনেমা নিয়মিত দেখেছেন। তবে সাম্প্রতিক সময়ে তারকাবহুল সিনেমা ঢালিউডে খুব একটা দেখা যায়না। সেই ঐতিয্য এবার ফিরে আসছে দীপনের ‘অপারেশন সুন্দরবন’ মাধ্যমে। তারকাবহুল এই সিনেমাটিতে অভিনয় করেছেন সিয়াম আহমেদ, নুসরাত ফারিয়া, জিয়াউল রোশান, রাইসুল ইসলাম আসাদ, রিয়াজ, তাসকিন রহমান, শতাব্দী ওয়াদুদ, রওনক হাসান, মনোজ প্রামাণিক, দর্শণা বণিক, আরমান পারভেজ মুরাদ, মানস বন্দ্যোপাধ্যায়, মনির খান শিমুল, নরেশ ভূঁইয়া প্রমুখ।

০৪। দীপনের বিশদ গবেষণার ফসল ‘অপারেশন সুন্দরবন’
দীপনের ‘অপারেশন সুন্দরবন’ সিনেমাটি কোন একক প্রচেষ্টার ফসল নয়। এছাড়া সিনেমাটির চিত্রনাট্য চূড়ান্ত করার আগে সিনেমাটি নিয়ে বিশদ গবেষণার করেছেন এই নির্মাতা। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘সুন্দরবনের প্রতিকূলতা একই থাকলেও এই টাকার তুলনায় দেশীয় অনেক কম টাকায় আমাকে অপারেশন সুন্দরবন শেষ করতে হবে ভেবেই ভয় শুরু হয়ে যায়। এর লম্বা সময় ধরে গবেষণা পর্যালোচনার পর শুটিং করি। শুটিং করতে গিয়ে পদে পদে প্রতিকূলতার মুখে পড়ি। এরপর আসে ডাবিং। এতে ব্যাকরাউন্ড আর্টিস্ট ব্যবহার হয়েছে প্রায় ১৩০০। ডাবিংয়ে এত ভয়েস পাওয়া নিয়ে সমস্যা হলো। স্ক্রিনে কথা বলছে এমন শিল্পী আছে ৭২ জন। এত ব্যাপক শিল্পী নিয়ে ডাবিং করতে লম্বা সময় লেগেছে।‘

০৫। প্রেক্ষাগৃহের পর্দায় এক টুকরো সুন্দরবন
দীপঙ্কর দীপনের ‘অপারেশন সুন্দরবন’ সিনেমাটি চিত্রায়িত হয়েছে বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় ম্যানগ্রোভ জঙ্গল সুন্দরবনে। গহীন সুন্দরবনে সিনেমাটির দৃশ্যধারন করতে গিয়ে সত্যি সত্যি ‘জলে কুমির ডাঙায় বাঘ’ এমন পরিস্থিতির মুখোমুখি হয়েছিলেন বলে জানিয়েছেন নির্মাতা দীপন। এছাড়া পোস্ট প্রডাকশনেও অনেক জটিল প্রক্রিয়া পাড়ি দিতে হয়েছে ‘অপারেশন সুন্দরবন’ সিনেমার টিমকে। দর্শকদের সুন্দরবনের আসল অনুভব দিতে সর্বোচ্চ চেষ্টা করছে পুরো টিম। দীর্ঘ পরিশ্রমের ফসল হিসেবে প্রেক্ষাগৃহের পর্দায় এক টুকরো সুন্দরবনকে হাজির করতে যাচ্ছেন নির্মাতারা।

উল্লেখ্য যে, ২০২১ সালের ফেব্রুয়ারিতে একটি অনুষ্ঠানের মাধ্যমে ‘অপারেশন সুন্দরবন’ সিনেমাটির টিজার প্রকাশ করেন নির্মাতারা। টিজারে প্রকাশ হওয়ার পর থেকে আভাস মিলেছে ‘অপারেশন সুন্দরবন’ হতে যাচ্ছে বাণিজ্যিক উপাদানে ভরপুর একটি জমজমাট সিনেমা। সিনেমার দৃশ্যধারন হয়েছে- মুন্সিগঞ্জ, খুলনা, সাতক্ষীরা, লবনচরা, সুন্দরবনের দুবলার চর, কটকা, কালিকা চর, পুটনীচর, এবং মংলা। পোড়া বাড়ী, গাজীপুর, জয়মনি, র্যাব ট্রেনিং স্কুল, র্যাব ফোর্সেস সদর দপ্তর।

আরো পড়ুনঃ
‘অপারেশন সুন্দরবন’ দিয়ে সাড়ে ছয় বছর পর বড় পর্দায় রিয়াজ
বক্স অফিসে মুখোমুখি ‘অপারেশন সুন্দরবন’ এবং ‘বিউটি সার্কাস’!
যে পাঁচটি কারনে আপনার দেখা উচিৎ আরিফিন শুভর ‘মিশন এক্সট্রিম’

হোসেন মৌলুদ তেজো
হোসেন মৌলুদ তেজোhttps://iammoulude.com/
হোসেন মৌলুদ তেজো একজন নিয়মিত ব্লগার যিনি সিনেমা নিয়ে লিখতে ভালোবাসেন। সিনেমার পাশাপাশি কবিতা, ছোট গল্প, সমসাময়িক এবং ব্যবসা সম্পর্কিত বিষয়েও লিখে থাকেন। প্রফেশনালী একটি বেসকারী আর্থিক প্রতিষ্ঠানে কর্মরত আছেন। ব্যক্তি জীবনে তিনি বই পড়ে, সিনেমা দেখে এবং তার একমাত্র ছেলের সাথে সময় কাটাতে পছন্দ করেন।

এ সম্পর্কিত

আরো পড়ুন

- Advertisement -
- Advertisement -

সর্বশেষ

মুক্তি প্রতীক্ষিত

  • লিডার আমিই বাংলাদেশ
    লিডার আমিই বাংলাদেশ