ঋতুপর্ণ ঘোষ: চলচ্চিত্রের একজন স্বপ্নদর্শী গল্পকারের সেরা কিছু কাজ

ঋতুপর্ণ ঘোষ

ঋতুপর্ণ ঘোষ

‘চলে যাওয়া মানেই প্রস্থান নয়’ – এভাবেই প্রতিটি সিনেমাপ্রেমীর মনে রাখা উচিত বাংলার এবং ভারতের প্রয়াত চলচ্চিত্র নির্মাতা ঋতুপর্ণ ঘোষকে। তিনি যখন চলচ্চিত্র জগতে প্রবেশ করেন, তখন বাংলা চলচ্চিত্রের অবস্থা ছিল মৃতপ্রায়। চিরসবুজ উত্তম-সুচিত্রার দিন চলে গেছে, দক্ষিণী চলচ্চিত্রের সস্তা রিমেক জনপ্রিয় ছিল, সঙ্গীত ছিল অস্বাভাবিক, তাই শিক্ষিত বাঙালিরা বাংলা সিনেমা এড়িয়ে চলতে শুরু করে। এই সময়েই ঋতুপর্ণ ঘোষ তার কেরিয়ার শুরু করেছিলেন ‘হীরের অঙ্গি’ এবং ‘উনিশে এপ্রিল’ সিনেমার মাধ্যমে। তার নির্মানের মুন্সিয়ানায় মুগ্ধ হয়েছিলেন বাঙালি ভদ্রলোকরা।

ঋতুপর্ণ ঘোষ পরিচালিত সিনেমা দিয়ে এই বাঙালি ভদ্রলোকদের প্রেক্ষাগৃহে ফিরে আসা শুরু হয়েছিলো। কলকাতা বাংলা সিনেমা খুঁজে পেয়েছিলো তার নতুন জীবন। ঋতুপর্ণ ঘোষের হাত ধরে বাংলা সিনেমার বাকিটা একটা ইতিহাস। নিজের সিনেমাগুলো দিয়ে ভারতীয় চলচ্চিত্রের একজন স্বপ্নদর্শী গল্পকার হিসেবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করেছিলেন এই নির্মাতা। ঋতুপর্ণ ঘোষের পরিচালনায় সেরা কিছু কাজ নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা থাকছে আজকের এই প্রতিবেদনে।

০১। দহন (১৯৯৭)
ঋতুপর্ণ ঘোষের পরিচালনায় ‘দহন’ সিনেমাটিতে ইতিবাচক সমাপ্তি নেই তবে বাস্তবতাকে ভালোভাবে উপস্থাপন করা হয়েছে। কিছু অসামাজিক উপাদান যখন নববিবাহিত রোমিতাকে (ঋতুপর্ণা সেনগুপ্ত) শ্লীলতাহানির শিকার করে, তখন একজন সাহসী স্কুল শিক্ষক ঝিনুক (ইন্দ্রানী হালদার) ছাড়া কেউ তার পাশে দাঁড়ানোর সাহস করে না। তাই ঝিনুক এর শিকারে পরিণত হয়, যখন রোমিতার পরিবার, সামাজিক কলঙ্কের ভয়ে, সামাজিক মর্যাদার আড়ালে লুকিয়ে থাকে। ‘দহন’ শিকার-লজ্জার একটি জ্বলন্ত উদাহরণ যা আমাদের অনেক নৈতিকতাকে প্রশ্নবিদ্ধ করেছে।

০২। উনিশে এপ্রিল (১৯৯৪)
‘উনিশে এপ্রিল’ ঋতুপর্ণের প্রথম জাতীয় পুরস্কার বিজয়ী সিনেমা। ঋতুপর্ণ ঘোষের পরিচালনায় মা-মেয়ের সম্পর্কের জটিলতা চমৎকারভাবে ফুটিয়ে তোলা হয়েছে। সরোজিনী (অপর্ণা সেন) এবং তার প্রয়াত স্বামীর মধ্যে জটিলতা আক্ষরিক অর্থেই আমাদের সমাজের কঠোর চিত্র। অদিতির সাথেও একই জিনিস ঘটে কারণ তার প্রেমিক তাকে স্ত্রী হিসাবে চায় না কারণ সে একজন নর্তকী কন্যা। অপর্ণা সেন তার চরিত্রে দুর্দান্ত অভিনয় করেছেন। একজন পেশাদার নৃত্যশিল্পীর ব্যক্তিত্ব এবং মাতৃপ্রেম উভয়ই চমৎকারভাবে সরোজিনী চরিত্রে ফুটে উঠেছে। কন্যা অদিতি চরিত্রে দেবশ্রী রায় সেরা অভিনেত্রীর জাতীয় পুরস্কার জিতে দর্শকদের বিস্মিত করেছিলেন।

০৩। তিতলি (২০০২)
‘তিতলি’ সিনেমায় নির্মাতা হিসেবে ঋতুপর্ণ ঘোষ প্রতিটি খুঁটিনাটির দিকে মনোযোগ দিয়েছেন এবং দুর্দান্ত গল্পের মাধ্যমে একটি সাধারণ তথাকথিত সুখী পরিবারের সারমর্মকে সুন্দরভাবে ধারণ করেছেন। এই সিনেমায় মিঠুন চক্রবর্তী একজন জনপ্রিয় চলচ্চিত্র তারকা হিসেবে অভিনয় করেছেন, যেখানে কঙ্কনা সেন শর্মাকে একজন ভক্তের চরিত্রে অভিনয় করেছেন। কিন্তু নিজের প্রিয় এই অভিনেতা সম্পর্কে তার আবেগ বদলে যায় যখন সে তার সাথে ব্যক্তিগতভাবে দেখা করে। নিঃসন্দেহে এটি একটি আকর্ষণীয় আখ্যান। তবে যা এই ছবিটিকে বিশেষ করে তোলে তা হল একটি জটিল মা-মেয়ের সম্পর্কের চিত্রায়ন, যা আরও উন্নত হয় যখন আমরা দেখি যে মেয়েটির মা (অপর্ণা সেন) আসলে তার প্রথম দিনগুলিতে মিঠুনের সাথে প্রেমের সম্পর্কে ছিলো। সমীকরণ দ্রুত পরিবর্তিত হয় যখন ভক্ত এবং স্টারডমের মধ্যে সম্পর্ক দ্বারা উপস্থাপিত একটি ঐশ্বরিক প্রেম চূড়ান্ত পরীক্ষার মুখোমুখি হয়।

০৪। উৎসব (২০০০)
‘উৎসব’ ঋতুপর্ণ ঘোষের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ সিনেমাগুলোর মধ্যে একটি। এই সিনেমাটির জন্য ঋতুপর্ণ ঘোষ সেরা পরিচালক হিসেবে গোল্ডেন লোটাস পুরস্কারও পেয়েছে। দূর্গা পূজার পটভূমিতে নির্মিত সিনেমাটি একটি চমৎকার গল্প বলে যা একটি পরিবার এবং আত্মীয়দের মধ্যে অনেক মানসিক স্রোতকে দেখায়। মাধবী মুখার্জি, মমতা শঙ্কর এবং প্রসেনজিৎ চ্যাটার্জির মতো ইন্ডাস্ট্রির কিছু বড় নাম ঋতুপর্ণা সেনগুপ্তের পাশাপাশি মুখ্য ভূমিকায় অভিনয় করেছেন। মোহনীয় অভিনেত্রী পরিবারের ছোট মেয়ের ভূমিকায় দুর্দান্ত অভিনয় করেছিলেন।

০৫। আবহমান (২০০৯)
ঋতুপর্ণ ঘোষ পরিচালিত শেষ সিনেমা ‘আবহমান’। সিনেমাটির জন্য সেরা পরিচালক হিসেবে জাতীয় পুরস্কার পেয়েছিল এই নির্মাতা। প্রাথমিকভাবে সিনেমাটির হিন্দিতে নির্মানের পরিকল্পনা করেছিলেন তিনি, কিন্তু শেষ পর্যন্ত দীপঙ্কর দে এবং মমতা শঙ্করকে প্রধান চরিত্রে নিয়ে বাংলায় তৈরি করেন। ঋতুপর্ণের পরিচালনায় এই সিনেমাটি একজন চলচ্চিত্র নির্মাতার সাথে তার স্ত্রী, অভিনেত্রী এবং তার মিউজিকের সম্পর্কের কথা বলে। গল্পের অগ্রগতির সাথে সাথে এই তিনটি সম্পর্ক আদান-প্রদান করতে শুরু করে যা এর ক্লাইম্যাক্স ব্যাখ্যার জন্য উন্মুক্ত করে। ‘ আবহমান’ তিনটি জাতীয় পুরস্কার জিতেছিলো – শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্র, শ্রেষ্ঠ পরিচালক এবং শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রী (অনন্যা চ্যাটার্জি)।

০৬। অসুখ (১৯৯৯)
জাতীয় পুরস্কার বিজয়ী চলচ্চিত্র (বাংলার সেরা ফিচার ফিল্ম) ‘অসুখ’ দুটি সমান্তরাল আখ্যান অনুসরণ করে। বর্তমানটিতে রোহিণীকে চিত্রিত করা হয়েছে (দেবশ্রী রায়) যিনি, একজন বিখ্যাত অভিনেত্রী যিনি মানসিকভাবে দুর্বল এবং ঘুমের ওষুধের প্রতি আসক্ত। তিনি তার মায়ের অসুস্থতা মোকাবেলা করার চেষ্টা করছেন কিন্তু শেষ পর্যন্ত তার বাবার (সৌমিত্র চ্যাটার্জি) সাথে একটি সূক্ষ্ম বিভেদ তৈরি করে। অন্যদিকে, ফ্ল্যাশব্যাক, তার বাগদত্তার সাথে ধীরগতির বিচ্ছিন্ন সম্পর্ককে হাইলাইট করে কারণ তিনি একজন তরুণ আসন্ন অভিনেত্রীর সাথে জড়িত হন, যা শেষ পর্যন্ত তার বর্তমান দুর্বলতাকে স্পষ্ট করে।

০৭। বাড়িওয়ালি (২০০০)
একজন নিঃসঙ্গ বাড়িওয়ালার গল্পকে ঘিরে আবর্তিত হয়েছে ‘বাড়িওয়ালি’ সিনেমাটি। ২০০০ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত এই সিনেমাটির প্রধান চরিত্রে অভিনয় করেছেন কিরন খের। গল্পে দেখা যায় তিনি একজন চলচ্চিত্র পরিচালকের প্রেমে পড়েন। জাতীয় পুরষ্কারের পাশাপাশি ২০০০ সালে বার্লিন আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবেও সিনেমাটি স্বীকৃতি লাভ করতে সক্ষম হয়েছিলো।

০৮। শুভ মহুরত (২০০৩)
একজন প্রবীণ অভিনেত্রী প্রখ্যাত বিনোদন সাংবাদিক মল্লিকা সেনের একটি সাক্ষাৎকার দেওয়ার সময় মারা যান। মৃত্যুর আশেপাশের রহস্যের কারণে এটি একটি পুলিশী তদন্তে পরিণত হয়। সেই তদন্তে বাংলা চলচ্চিত্র শিল্পের বহু বিখ্যাত এবং বিস্মৃত মুখের খোলাসা করে। সাংবাদিক আগাথা ক্রিস্টির জনপ্রিয় কাজ ‘দ্য মিরর ক্র্যাকড ফ্রম সাইড টু সাইড’-এর এই সর্বোত্তম বাংলা রূপান্তরে নিজের জায়গায় বসে খুনের রহস্যের সমাধান করেন এবং তার রাঙ্গা পিশিমার মধ্যে একটি প্রতীকী সেতুর ভূমিকায় অভিনয় করেন। ‘শুভ মহরত’ সেরা পার্শ্ব অভিনেত্রী (রাখি) এবং বাংলা বিভাগে সেরা ফিচার সিনেমা হিসেবে দুটি জাতীয় পুরস্কার জিতেছিলো।

০৯। চোখের বালি (২০০৩)
একই নামের রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের বিখ্যাত উপন্যাসের উপর ভিত্তি করে নির্মিত ‘চোখের বালি’ সিনেমায় ঋতুপর্ণ ঘোষ গল্পের প্রতিটি চরিত্রের সাথে চমত্কারভাবে ন্যায়বিচার করেছেন। এই সিনেমাটিও বাংলায় সেরা ফিচার ফিল্মের জন্য জাতীয় পুরস্কার জিতেছিলো। একজন বিধবা বিনোদিনীর মানসিক বৃদ্ধিকে ঘিরে এগিয়েছে সিনেমাটির গল্প। আপনি ঐতিহ্যের সমস্ত ছায়াগুলির সাথেও সম্পর্কযুক্ত করতে পারেন যা একজন মহিলার যৌনতাকে দমন করে এবং দুটি মহিলার মধ্যে অনন্য বন্ধন যা সমস্ত প্রতিকূলতার বিরুদ্ধে স্থির থাকে যা জিনিসগুলিকে ভেঙে পড়তে বাধা দেয়।

১০। দোসর (২০০৬)
প্রসেনজিৎ চ্যাটার্জি (কৌশিক) এবং কনকোনা সেন শর্মাকে প্রধান চরিত্রে নিয়ে নির্মিত এই কালো-সাদা সিনেমাটিতে দেখা যায় একটি দুর্ঘটনা কিভাবে একটি দম্পতির জীবনকে বদলে দেয়। সেই দুর্ঘটনায় কৌশিকের স্থ্রী মিতা মারা যায় এবং সে আহত হয়। প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায় এই সিনেমার জন্য সেরা অভিনেতা হিসেবে দুটি পুরস্কার পেয়েছেন যার মধ্যে রয়েছে জাতীয় পুরস্কার (বিশেষ জুরি পুরস্কার) এবং বেঙ্গল ফিল্ম জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশন অ্যাওয়ার্ড।

কলকাতা বাংলা তথা ভারতীয় চলচ্চিত্রের একজন স্বপ্নদর্শী গল্পকার ঋতুপর্ণ ঘোষ মৃত্যুর পরও ওমর হয়ে আছেন কোটি সিনেমাপ্রেমীদের দখলে। প্রিয় পাঠক, ঋতুপর্ণ ঘোষ পরিচালিত এই সিনেমাগুলোর মধ্যে আপনার পছন্দের সিনেমা কোনটি তা আমাদের জানিয়ে দিন মন্তব্যে। এছাড়া ভারতীয় সিনেমার ইতিহাসের অন্যতম সেরা এই নির্মাতার আর কোন সিনেমা এই তালিকায় থাকা উচিৎ বলে আপনি মনে করছেন সেটাও জানিয়ে দিতে পারেন মন্তব্যে।

আরো পড়ুনঃ
সৃজিত মুখোপাধ্যায়ের হাত ধরে বড় পর্দায় ফিরছেন মহানায়ক উত্তম কুমার
কলকাতা বাংলা সিনেমার নতুন দিনের রুপকার সৃজিত মুখার্জির সেরা ছয় সিনেমা!
প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায়: বুম্বাদা থেকে যেভাবে টলিউডের ‘মিস্টার ইন্ডাস্ট্রি’

By হোসেন মৌলুদ তেজো

হোসেন মৌলুদ তেজো একজন নিয়মিত ব্লগার যিনি সিনেমা নিয়ে লিখতে ভালোবাসেন। সিনেমার পাশাপাশি কবিতা, ছোট গল্প, সমসাময়িক এবং ব্যবসা সম্পর্কিত বিষয়েও লিখে থাকেন। প্রফেশনালী একটি বেসকারী আর্থিক প্রতিষ্ঠানে কর্মরত আছেন। ব্যক্তি জীবনে তিনি বই পড়ে, সিনেমা দেখে এবং তার একমাত্র ছেলের সাথে সময় কাটাতে পছন্দ করেন।

এ সম্পর্কিত