বৃহস্পতিবার, এপ্রিল ১৫, ২০২১
Home ফিল্মী ব্লগ আমার দেখা সেরা দশঃ একবিংশ শতাব্দীতে মুক্তি পাওয়া ডিজাষ্টার ভিত্তিক সিনেমা

আমার দেখা সেরা দশঃ একবিংশ শতাব্দীতে মুক্তি পাওয়া ডিজাষ্টার ভিত্তিক সিনেমা

ধরুন আপনি একজন প্রকৃতি প্রেমী কিন্তু এই প্রকৃতি যে মাঝে মাঝে এমন বৈরিতা পূর্ণ আচরণ করে সেটা মেনে নেওয়া যেমন কষ্টকর তেমনি ওই অবস্থায় নিজেকে টিকিয়ে রাখাটা সবচেয় বড় চ্যালেঞ্জ হয়ে দাড়ায়। যেখানে নিজের অস্তিত্ব টিকিয়ে রাখতে আপনি পারমানবিক বোমা, গোলাবারুদ প্রদর্শন করে কিছুই করতে পারবেন না। এই পর্বে আপনাদের সামনে উপস্থাপন করবো একবিংশ শতাব্দীতে মুক্তিপ্রাপ্ত (২০০০ সাল থেকে ২০২০) ডিসেস্টার ভিত্তিক সেরা ১০ টি মুভি।

- Advertisement -

১০। Hurricane Heist (2018)

ভল্ট থেকে প্রায় ৬০০ মিলিয়ন ডলার আপনি ডাকাতি করবেন। সিকিউরিটির প্রতিবন্ধকতা আপনি সামলে উঠার প্ল্যান আগেই করে রেখেছিলেন কিন্তু হ্যারিকেন থেকে বাঁচার ছক কি আঁকতে পেরেছিলেন? নাকি হ্যারিকেনটি ডাকাতি টাকে অনেকটা উপভোগ্য করে তুলেছে? জানতে হলে দেখতে হবে আপনাকে পুরো মুভিটি। ১৯৯২ সালে ক্যাটাগরি ৫ লেভেল এর একটা হ্যারিকেন আঘাত হানে মিসিসিপি এর গালফপতে। প্রায় ৩৬ বছর পর আবার একই লেভেল এর টেমি নামের আরেকটা হ্যারিকেন আঘাত হানে শহরটিতে আর তখনই ঘটে এই ভল্ট ডাকাতির ঘটনাটি। বক্স অফিস যদিও সফলতার মুখ দেখেনি মুভিটি সত্য ঘটনার একটা ছোটখাটো আবেশ দিয়ে বানানো হয়েছে মুভিটি।

- Advertisement -

০৯। Knowing (2009)

এ মুভির প্লটে দেখানো হয় ১৯৫৯ সালে স্কুলে একটা চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা হয় যেখানে বিষয়বস্তু ছিল ভবিষ্যতে কি হতে পারে তার উপর ভিত্তি করে ছবি আঁকা। যেই ছবিগুলো একটা টাইম ক্যাপস্যুল এ সংরক্ষন করা হবে এবং ৫০ বছর পর উন্মুক্ত করা হবে। সবাই অনেক চিত্র আঁকলেও লুসিডা নাম করে এক প্রতিযোগী কিছু অসম্পূর্ণ কোড লিখে দেয় কাগজে, সময় শেষ হয়ে জাউয়ায় বাকিটুকুন সে লিখতে না পেরে ভল্ট এর গায়ে নখ দিয়ে আরও কিছু সংখ্যা লিখে রাখে সে। ৫০ বছর পরে যখন ক্যাপস্যুল খোলা হয় সেই কাগজ বের করে দেখা যায়, সেই কোড গুলো ছিল এতদিনে ঘটে জাউয়া প্রাকৃতিক দুর্যোগের তারিখ ও সময়। যেখানে বুঝা যাচ্ছিল আরও ৩তি ঘটনা নিকট ভবিষ্যতে ঘটার কথা বলা রয়েছে। সেখান থেকেই শুরু মুভির মুল ঘটনাটি। নিকলাস কেইজ অভিনীত মুভিটি নির্মাণে প্রায় ৫০ মিলিয়ন ডলার খরচ হলেও মুভিটি প্রায় ২১৪ মিলিয়ন এর বেশি অর্জন করে নেয়।

০৮। The Wave (2015)

ক্রিস্টিয়ান একজন অভিজ্ঞ ভূতত্ত্ববিদ হটাত আবিষ্কার করে তার পর্বতের সেন্সরগুলো ঠিক মতন কাজ করছে না। কিছু সহকর্মী ঘটনাস্থলে পৌঁছে যায় অপরদিকে ক্রিস্টিয়ান আবিষ্কার করতে থাকে কিছু একটা গড়বর হচ্ছে। ধেয়ে আসছে হয়তো কোন প্রলয়। অবশেষে পরিস্কার হয় ব্যাপারটি প্রায় ৮০ মিটার বা ২৬০ ফুট উচ্চতার একটা সুনামি ধেয়ে আসছে তাদের দিকে, ক্রিস্টিয়ান পারবে তো তার পরিবার, সহকর্মী ও সাধারন মানুষদের বাঁচাতে? ৮৮তম অস্কারে মুভিটি সেরা বিদেশি ভাষার মুভি হিসেবে মনোনয়ন পেয়েছিল।

০৭। Into The Storm (2014)

স্নাতকোত্তর এর সন্মাননা দেউয়া হচ্ছিল একটা শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এ এর মদ্ধেই ওকলাহমার সিল্ভারটন শহরে আঘাত হানে টর্নেডো। পারবে তো সকল শিক্ষার্থী বাঁচতে ? মুভিটিতে টর্নেডোর দৃশ্যায়ন গুলো সুনিপুন ভাবে দেখানো হয়েছে, টর্নেডো কতটা ভয়ঙ্কর হতে পারে সেই দৃশ্য অনেকটা সামনে থেকে দেখানো হয়েছে বলে আপনার কাছে মনে হবে। সবচেয় মজার ব্যাপার আপনি যদি কোনভাবে টর্নেডোর মাজখানে পরেই জান তবে কি দেখতে পাবেন, মুভিটিতে সেরকম একটি দৃশ্য দেখানো হয়েছে।মুভিটির নামকরনের সার্থকতার জন্যই হয়তো করা হয়েছে এমন দৃশ্য।

০৬। Geostorm (2017)

মুভিটিতে দেখান হয়, ২০১৯ সাল অবধি বহু প্রাকৃতিক বিপর্যয়ের পরে জলবায়ু নিয়ন্ত্রক কমিশন ক্রিত্তিম উপগ্রহ আবিষ্কার করেন যেটা দিয়ে প্রাকৃতিক বিপর্যয় সামলানো একদমই হাতের মোয়া হয়ে গেল। কিন্তু বিধি বাম এই উপগ্রহই কিনা কাল ডেকে আনলো পৃথিবীর জন্য। কোথাও তাপমাত্রা বাড়িয়ে দিচ্ছে তো কোথাও হিমাঙ্কের নিচে সব জমিয়ে দিচ্ছে। বক্স অফিস তেমন সাফল্য পায়নি মুভিটি কিছু ভিসুয়াল ইফেক্তস নিয়ে সমালোচকদের তোপের মুখে পরতে হয়েছে এই মুভি ডিরেক্টরকে। বিস্তারিত দেখতে মুভিটি একবার দেখেই ফেলুন।

০৫। The Quake (2018)

আরেকটি নরওয়েজিয়ান মুভি। ক্রিস্টিয়ান আইকজরদ একজন ভূতত্ত্ববিদ। তার মৃত এক সহকর্মীর বাড়ি আসে তার পরিবার পরিজনের সাথে দেখা করতে আর সহকর্মীর কক্ষে আবিষ্কার করতে পারে। পৃথিবীর মানুষ মৃত্যুকূপে পরতে যাচ্ছে এমনই একটা গবেষণা করছিল তার সেই বন্ধু। বাকি ডাইয়িত্ত পড়লো ক্রিস্টিয়ান এর হাতে। ক্রিস্টিয়ান যতই বুজাচ্ছে একটা বড়সড় ভুকম্প আসছে কিন্তু আবহাওয়া বিভাগ মানতে নারাজ তারা দাবি করছে এ খনি শ্রমিকদের মাইন বিস্ফোরণে সামান্য ভূমির নরাচরা। কি হচ্ছে পরবর্তীতে, দেখতে বসে জান মুভিটি।

০৪। The Impossible (2012)

২০০৪ সালের সুনামিকে কেন্দ্র করেই গড়ে উঠা এই মুভির গল্প। বড়দিনের ছুটি কাটাতেই থাইল্যান্ড এর খাও লাক এ পাড়ি জমায় একটি কাতালান পরিবার। উদ্দেশ্য হৈ হুল্লোড় করে ছুটি কাটানো। কিন্তু ভাগ্যে যে লেখা ছিল নির্মম কিছু। মুহূর্তে ওলট পালট করে দেয় সকল মানুষ গুলোকে। কাতালান ওই পরিবার কে কেন্দ্র করে মুভিটির গল্প এগিয়ে গেলেও। একটা দেশের দুর্ঘটনা পরবর্তী অবস্থা যে কি পরিমান ভয়াবহ হতে পারে, খুব ভালভাবে ফুটিয়ে তুলেছেন ডিরেক্টর। মুভিটিতে একটা বেশ কার্যকর ও মুখ্য শিশু চরিত্রে অভিনয় করেছে। আমাদের বর্তমান স্পাইডারমান টম হল্যান্ড।

০৩। San Andreas (2015)

এ সময়কার অন্যতম জনপ্রিয় একজন অভিনেতা ডয়াইন দ্যা রক জন্সন। নিজেই থাকেন একজন পাইলট এবং রেস্কিউয়ার। বিপদগ্রস্ত মানুষকে তুলে নিয়ে আসতেন পর্বতের কোনায় অথবা খুব দুর্ঘটনা প্রবন জায়গা থেকে। কিন্তু কে জানতো নিজের পরিবারকে রক্ষা করতেই এক বিশাল পরীক্ষার সম্মুখীন হতে হবে এই রেস্কিউয়ার কে। সান আন্দ্রিজ এ ঘটে জাউয়া এক বিশাল প্রাকৃতিক দুর্যোগ এবং একটি পরিবারের সারভাইভ কে কেন্দ্র করে তৈরি করা মুভিটি। মুভিটির ভিসুয়াল এক কথায় অসাধারন। নির্মাণ শৈলী দের প্রশংসা অবশ্যই করবেন আপনি মুভিটি দেখার পর। আর অভিনেতা অভিনেত্রীদের কথা তো বাদ ই দিলাম।

০২। The Day After Tomorrow (2004)

এবার আপনাদের সামনে উপ্সথাপন করতে যাচ্ছি অসাধারণ একটা মুভি। হা অনেকেই হয়তো দেখে ফেলেছেন ২০০৪ সালে রিলিজ হউয়া এই মুভিটি। আর যারা দেখেন নি ভাই আপনি তাহলে ডিসেস্তার মুভির এখনো কিছুই দেখেননি। আমেরিকার পেলিয়ক্লিমেটলজিস্ট জ্যাক হল তার সহকর্মী দের নিয়ে জলবায়ু পরিবর্তন নিয়ে এক বিশাল কিছু আবিষ্কার করেন যা আগাম সতর্কতা নিলে বেঁচে যেত অনেক প্রান। কিন্তু এধরণের মানুষদের অনেকটা পাগল ভেবেই সবকিছু উড়িয়ে দেউয়া হয়। কিন্তু ভাবতে পারেন হটাত কোন এক জলোচ্ছ্বাস মুহূর্তে সব শেষ করে দিচ্ছে স্ট্যাচু অফ লিবার্টির চেয়েও বর সর ডেউ সব ভাসিয়ে নিয়ে বেড়াচ্ছে এবং কয়েক তলা অবধি ডুবিয়ে নিয়ে যাচ্ছে মুহূর্তেই। অত টুকুন হলেও কথা ছিল শুরু হল তাপমাত্রা কমা তাও প্রায় ১০০ এরও বেশি ডিগ্রী ফারেনহাইটের নিচে। এই অবস্থায়ই নিজেকে টিকিয়ে রাখতে হবে।

অনেকেই বলতে পারেন ৮-১০টা ডিসেস্তার মুভির মতই তো কাহিনী এ আর এমনকি। কিন্তু স্যার আপ্নাকেই বলছি। মুভিটির রিলিজ সালটি খেয়াল করুন। ওই সময় এমন ভিজুয়াল দিয়ে এমন কাহিনী এবং দুর্যোগের চিত্র সুন্দর ভাবে ফুটিয়ে তুলা একটু বিশেষ ব্যাপারই ছিল। আর ইন্টারনেট অতটা সহজলভ্য ছিল না চাইলেও সহজে ডাউনলড করে দেখা যেত না। আপনাকে বাজার থেকে ডিভিডি / সিডি ক্যাসেট ভাড়া করে অথবা কিনে এনে দেখতে হতো। ১২৫ মিলিয়ন খরচ করা মুভিটি তারপরেও ৫৫২ মিলিয়নের বেশি উপারজন করে নেয়। আমি নিজেও যখন মুভিটি দেখি সে এক শীতের সকাল হালকা ইলশে গুঁড়িও পরছিল তার উপরে এই কাহিনীপট অদ্ভুত এক মুহূর্তই ছিল।

০১। 2012

২০০৯ সালের দিক দিয়ে একটা গুঞ্জন উঠেছিল শেষ হচ্ছে পৃথিবীর আয়ু। ধংস হতে যাচ্ছে সকল সৃষ্টি কর্ম। ২০১২ সালের এক সময়ে ধ্বংস হবে পৃথিবী নানাবিধ প্রলয়ের মাধ্যমে। সেই চিন্তাধারাকে কেন্দ্র করে তৈরি হয়েছিল বেশ কিছু মুভি। তার মাঝে এই ২০১২ টাইটেল এর এটি ছিল অন্যতম একটি মুভি। তবে নিজেদের টিকিয়ে রাখতে মুভিতে দেখান হয় বিজ্ঞানীদের আপামর প্রচেষ্টায় তৈরি হয় কিছু বিশেষ যান। কিন্তু সেখানেও এ এক অপার বৈষম্য। ভিআইপি হলেই আপনি সেই যানে থেকে নিজেকে বাঁচাতে পারবেন এমনকি আপনার পোষা কুকুর ও জীব জন্তুও বেঁচে যাবে কিন্তু ভাই আপনি সাধারন মানুষ হলেই বিপত্তি, কে বাঁচাতে আসবে আপনাকে। নিজেকে বাঁচাতে অপরের প্রতি নিষ্ঠুরতার এক চমৎকার চিত্র তুলে ধরেছিল এই মুভিটি। আবার এমন পরিস্থিতিতে যে অনেক ভালো মানুষের অবদানও থাকে সেটার নিদর্শনও পাউয়া গেছে মুভিটিতে। মুভির ভিজুয়াল গুলো এতোটাই প্রানবন্ত করে তোলা হয়েছিল। সে সময় দেখলে একবার হলেও আপনি ভাবতে বাধ্য হতেন এমনটাই হতে যাচ্ছে পৃথিবীর বুকে। সে সময় পৃথিবী ধ্বংসের গুঞ্জন নিয়ে মুভিটি একবার হলেও দেখেছেন অনেক মুভি প্রেমী। রলান্ড এমারিখ এর ডিরেক্ট করা আর নামকরা অভিনেতা জন কুসাক এর অভিনীত ২০০ মিলিয়ন খরচ করা এই মুভিটি প্রায় ৭৭০ মিলিয়ন আয় করে।

তো দেখতে বসে যান আপনার না দেখা মুভিটি আর দেখা হয়ে গেলে কমেন্ট সেকশনে জানিয়ে যান আপনার কাছে ভালো লাগা মুভিটি কোনটি? মুভি দেখা শেষ হলে অবশ্যই আইএমডিবি তে রেটিং দিয়ে আসবেন। সামনের পর্বগুলোতে হাজির হবো নতুন বিষয়ের সেরা ১০ সিনেমার তালিকা নিয়ে।

মন্তব্য করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন
এখানে আপনার নাম লিখুন

সর্বশেষ মন্তব্য

মুক্তির প্রতীক্ষিত

  • Sphulingo

সর্বশেষ খবরাখবর

কারিনা কাপুরের ছেড়ে দেয়া

কারিনা কাপুরের ছেড়ে দেয়া আলোচিত ৭টি সিনেমা

0
বলিউডের অন্যতম জনপ্রিয় এবং শক্তিশালী অভিনেত্রী কারিনা কাপুর। ইতিমধ্যে অনেকগুলো সিনেমায় তিনি তার জনপ্রিয়তা এবং অভিনয় শক্তির প্রমান দিয়েছেন। 'রিফিউজি', 'যাব উই মেট' এবং...
মঞ্জু ওয়ারিয়র

দর্শকদের কাছে গ্রহণযোগ্যতা পুরষ্কার পাওয়ার চেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ : মঞ্জু ওয়ারিয়র

0
২০২১ সালটা মঞ্জু ওয়ারিয়রের জন্য ইতিমধ্যে অন্যতম অর্জনের বছর হিসেবে প্রতীয়মান হয়েছে। 'মারাক্কার' শ্রেষ্ঠ সিনেমা হিসেবে জাতীয় পুরষ্কার অর্জনের পর 'অসুরান' সেরা তামিল সিনেমা...
প্রকাশ্যে মোহনলালের দুর্দান্ত সংলাপ

প্রকাশ্যে মোহনলালের দুর্দান্ত সংলাপ এবং একশনে ভরপুর ‘আরাত্তু’ টিজার

0
করোনা প্রতিরোধের সকল প্রস্তুতি নিয়েই পালাকাণ্ডে দৃশ্যধারন করা হয়েছে মালায়লাম মেগাষ্টার মোহনলাল অভিনীত নতুন সিনেমা ‘আরাত্তু’। এছাড়াও সিনেমার কিছু অংশের শুটিং হয়েছে হায়দ্রাবাদে। জানা...
'সরকারু বাড়ি পাতা' সিনেমার

‘সরকারু বাড়ি পাতা’ সিনেমার দ্বিতীয় শিডিউল শুরু করলেন মহেশ বাবু

0
কিছুদিন আগেই সুপারষ্টার মহেশ বাবু দুবাইয়ে তার নতুন সিনেমা 'সরকারু বাড়ি পাতা' এর প্রথম শিডিউল। এবার জানা গেছে চলতি সপ্তাহে হায়দ্রাবাদে সিনেমাটির দ্বিতীয় শিডিউলের...
রনভীর সিংকে নিয়ে 'আনিয়ান'

রনভীর সিংকে নিয়ে ‘আনিয়ান’ হিন্দি রিমেক করছেন পরিচালক শঙ্কর

0
রনভীর সিংকে নিয়ে আলোচিত নির্মাতা শংকরের হিন্দি সিনেমা নির্মানের খবর শোনা গিয়েছিলো বেশ কিছুদিন আগে। এদিকে সম্প্রতি আরো গেছে সিনেমাটির সাথে এবার যুক্ত হলেন...

আরো পড়ুন