প্যানেল পরিচিতি অনুষ্ঠানে মায়ের কথা মনে করে কাঁদলেন জায়েদ খান!

কাঁদলেন জায়েদ খান

বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির সাধারণ সম্পাদক পদে তৃতীয়বারের মতো নির্বাচন করছেন চিত্রনায়ক জায়েদ খান। আসন্ন নির্বাচনে টানা দুইবারের বিজয়ী এই তারকার বিপরীতে জোর প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন চিত্রনায়িকা নিপুণ। আগামী ২৮ জানুয়ারি এই নির্বাচন নিয়ে রোববার দুপুরে প্যানেল পরিচিতির আয়োজন করে মিশা-জায়েদ পরিষদ। সেই প্যানেল পরিচিতি অনুষ্ঠানে কিছুদিন আগে হারানো মায়ের কথা মনে করে কেঁদেছেন জায়েদ খান!

- Advertisement -

উক্ত অনুষ্ঠানে জায়েদ খান কান্নাজড়িত কণ্ঠে বলেন, ‘কদিন আগে করোনায় মাকে হারিয়েছি। বাবার মৃত্যুর এক বছরের মাথায় মা চলে গেল। রাজারবাগ পুলিশ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যাওয়ার আগে মা বলে গেছে, তোমার বিয়ে করা লাগবে না। সমিতি সমিতি নিয়েই থাক। আমি যে কত এতিম এখন, বোঝাতে পারব না।‘

নিজের জন্য না ভেবে সবসময় এই সমিতি ও এখানকার মানুষদের জন্য কাজ করেছি উল্লেখ করে তিনি আরো বলেন, ‘করোনার মধ্যে মারা যাওয়া প্রত্যেক শিল্পীর লাশ কাঁধে নিয়ে দাফন করেছি। এখনও আমার ঘাড়ে সেই ব্যথা। কি করিনি এই সমিতির জন্য? কাজ বেশি করেছি বলে আমার দুর্নাম বেশি হচ্ছে। এফডিসির মধ্যে কিছু কুকুর আছে। করোনার মধ্যে তারা না খেয়ে মারা যাচ্ছিল। সেই কুকুরগুলোকে বাসা থেকে রান্না করে এনে খাইয়েছি। আমি যদি একটাও কথা মিথ্যা বলি আমার বাবা-মায়ের মৃত আত্মা যেন শাস্তি পায়।‘

- Advertisement -

কাঁদলেন জায়েদ খান

আবেগঘন কন্ঠে বর্তমান কমিটির এই সাধারণ সম্পাদক আরও বলেন, ‘আমি যে বোনের কাছে বড় হয়েছি, সে ক্যান্সারের রোগী। কদিন আগে যখন রাত ১টার সময় আমাকে শিমু হত্যায় ফাঁসানোর চেষ্টা করা হলো; তখন সেই বোন আমাকে চুমু দিয়ে বলল, ‘‘ভাই তুই এসব থেকে বেরিয়ে আয়। তোকে হারাতে চাই না। সমিতির দরকার নেই।’’ এই নির্বাচনকে কেন্দ্র করে তাকে ফাঁসানোর চেষ্টা করা হয়েছে দাবি করে তিনি বলেন, ‘আমি এখন এতিম। এই শিল্পীরাই আমার পরিবার। সুচরিতা আপা আমাকে বলেছেন, ‘‘আমি তোর মা।’’

- Advertisement -

শিল্পী সমিতির এ নির্বাচনে মিশা সওদাগর সভাপতি পদে লড়ছেন। তার সঙ্গে সাধারণ সম্পাদক পদে আছেন জায়েদ খান। এই প্যানেল থেকে আরও নির্বাচন করছেন সুব্রত, অঞ্জনা, অরুণা বিশ্বাস, রোজিনা, সুচরিতা, মৌসুমি, ডিপজল, রুবেল, আলী রাজ, জয় চৌধুরী, আলেকজান্ডার বো প্রমুখ। তাদের প্রতিদ্বন্দ্বী প্যানেল থেকে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদে নির্বাচন করছেন ইলিয়াস কাঞ্চন ও নিপুণ। আরও আছেন রিয়াজ, ফেরদৌস, ইমন, সাইমন, নিরব, পরীমনির মতো তারকারা।

কাঁদলেন জায়েদ খান

এবার নির্বাচন কমিশনারের দায়িত্ব পালন করবেন পীরজাদা হারুন। দুজন সদস্য হলেন জাহিদ হোসেন ও বজলুর রাশীদ চৌধুরী। আপিল বোর্ডের চেয়ারম্যান করা হয়েছে সোহানুর রহমান সোহানকে। মোহাম্মদ হোসেন জেমী ও মোহাম্মদ হোসেনকে আপিল বোর্ডের সদস্য করা হয়েছে। নতুন মেয়াদের নির্বাচনকে সামনে রেখে গত ৭ ডিসেম্বর তাঁরা দুজনেই ক্ষমতা হস্তান্তর করেছেন বলে জানা গেছে।

প্রসঙ্গত, ইলিয়াস কাঞ্চন ও নিপুণ সাধারণ শিল্পী থেকে শুরু করে জনপ্রিয় শিল্পীদের গুরুত্ব দিয়ে প্যানেল নির্ধারণে কাজ করছেন। নিজেদের গ্রহণযোগ্যতা প্রমাণ করতে ছুটে যাচ্ছেন সাধারণ শিল্পীদের কাছে। তবে এবারের শিল্পী সমিতির নির্বাচনে সভাপতি প্রার্থী নিয়ে তেমন আলোচনা না থাকলেও সাধারণ সম্পাদক পদে নিপুণ ও জায়েদ খানকে নিয়ে বেশ আগে থেকে রয়েছে আলোচনা।

আরো পড়ুনঃ
এফডিসিতে রিয়াজের কান্না: সমালোচনায় যা বললেন জায়েদ খান
নতুন মেয়াদে শিল্পী সমিতির নেতৃত্ব পেতে মুখোমুখি নিপুণ এবং জায়েদ খান
কাঞ্চন-নিপুণ প্যানেলে শিল্পী সমিতির নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন পরীমনি

এ সম্পর্কিত

আরো পড়ুন

- Advertisement -

সর্বশেষ

মুক্তি প্রতীক্ষিত

  • লিডার আমিই বাংলাদেশ
    লিডার আমিই বাংলাদেশ